Airtel & Robi User Only

প্রচ্ছদ » জাতীয় » বিস্তারিত

মাধ্যমিকে পাসের হার ৭৭.৭৭ শতাংশ

২০১৮ মে ০৬ ১০:২৮:০৪ ২০১৮ মে ০৬ ১১:০৫:০০
মাধ্যমিকে পাসের হার ৭৭.৭৭ শতাংশ

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : চলতি বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার ১০ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন।

তবে এবার পাসের হার ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ কমেছে। তবে পূর্ণাঙ্গ জিপিএ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে ৫ হাজার ৮৬৮ জন।

রবিবার (৬ মে) সকাল ১০টার পর শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ে তার হাতে ফলাফলের সারসংক্ষেপ হস্তান্তর করেন।

প্রধানমন্ত্রী সে ফলাফল অনলাইনে প্রকাশ করেন, যা বেলা ২টার পর পাওয়া যাবে। এ সময় শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন শিক্ষা বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যানরা। শিক্ষামন্ত্রী এ সময় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে ধরেন। দুপুর ১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত ফল প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী এ সময় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে ধরেন। তিনি জানান, এবার সারাদেশে ২০ লাখ ২৬ হাজার ৫৭৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে পাস করে ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ১০৪ শিক্ষার্থী, যা গড়ে ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। এরমধ্যে ছাত্রদের পাসের হার ৭৬ দশমিক ৭১ শতাংশ, আর ছাত্রীর পাসের হার ৭৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ শিক্ষার্থী। এরমধ্যে ৫৫ হাজার ৭০১ জন ছাত্র, আর ৫৪ হাজার ৯২৮ জন ছাত্রী।গতবছর এ পরীক্ষায় গড় পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ৪ হাজার ৭৬১ জন। সে হিসেবেএবার পাসের হার ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ পয়েন্ট কমেছে।

তিনি বলেন, এসএসসির ৮ শিক্ষা বোর্ডে এবার অংশ নেয় ১৬ লাখ ২৪ হাজার ৪২৩ জন পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে পাস করে ১২ লাখ ৮৯ হাজার শিক্ষার্থী, যা গড়ে ৭৯ দশমিক ৪০ শতাংশ। এই ৮ বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ৮৪৫ জন। মাদ্রাসা বোর্ডে এবার অংশ নেয় ২ লাখ ৮৬ হাজার ২০৬ শিক্ষার্থী। এরমধ্যে পাসের হার ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ। এ বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ৩৭১ জন। আর কারিগরি বোর্ডে এবার পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১৫ হাজার ২৩৪ জন। এরমধ্যে পাস করে ৮২ হাজার ৯১৭ জন, যা গড়ে ৭১ দশমিক ৯৬ শতাংশ। এ বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৪১৩ শিক্ষার্থী।

গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এসএসসি ও সমমানের তত্ত্বীয় বিষয়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা ২৬ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে ৪ মার্চ শেষ হয়।

এ বছর সারাদেশে তিন হাজার ৪১২টি কেন্দ্রে মোট ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৮৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে ১০ লাখ ২৩ হাজার ২১২ জন ছিল ছাত্র এবং ছাত্রীর সংখ্যা ১০ লাখ ৮ হাজার ৬৮৭ জন।

এসএসসিতে মোট পরীক্ষার্থী ১৬ লাখ ২৭ হাজার ৩৭৮ জন, মাদরাসা বোর্ডের অধীন দাখিল পরীক্ষায় দুই লাখ ৮৯ হাজার ৭৫২ জন এবং কারিগরিতে এক লাখ ১৪ হাজার ৭৬৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়।

এসএমএসে ফলাফল
যে কোনো মোবাইল থেকে এসএমএস করে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল জানা যাবে।

SSC/DAKHIL লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৮ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে ফল জানা যাবে।

এছাড়াও www.educationboardresults.gov.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে ফলাফল ডাউনলোড করা যাবে।

ফলাফল পুনঃনিরীক্ষা
রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটক থেকে আগামী ৭ থেকে ১৩ মে পর্যন্ত এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে।

ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করতে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে।

ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেওয়া হবে তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইযেন্টিফিকেশন নম্বর) দেওয়া হবে।

আবেদনে সম্মত থাকলে RSC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে পিন নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে।

প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য ১২৫ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে।

যে সব বিষয়ের দুটি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে যে সকল বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে দুটি পত্রের জন্য মোট ২৫০ টাকা ফি কাটা হবে।

একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের আবেদন করা যাবে, এক্ষেত্রে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে।

(দ্য রিপোর্ট/এনটি/মে ০৬, ২০১৮)