Airtel & Robi User Only

প্রচ্ছদ » জেলার খবর » বিস্তারিত

হাসপাতালে বিয়ে!

২০১৯ সেপ্টেম্বর ০৭ ১৩:২৪:৩০
হাসপাতালে বিয়ে!

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে উচ্চ শব্দে বাংলা-হিন্দি গান বাজিয়ে শুক্রবার দিনব্যাপী একটি বিয়ের অনুষ্ঠান হয়েছে। মাঝে মধ্যে নাচও হয়েছে। অনুষ্ঠানস্থলের পাশের কক্ষেই শুয়েছিলেন রোগীরা। রোগীদের স্বজনদের অভিযোগ, এমন একটি জায়গায় বিয়ের আয়োজন করায় রোগীদের অসহনীয় যন্ত্রণার শিকার হতে হয়েছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, হাসপাতালের বাবুর্চি আলী আজগরের মেয়ে সুমি আক্তারের বিয়ে উপলক্ষে টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের ভেতরেই আনুষ্ঠানিকতা চলে। বিয়ে আয়োজনের অনুমতি দেন ওই হাসপাতালের পরিচালক ডা. কমর উদ্দিন। শুক্রবার দুপুরে অনুষ্ঠান, তাই বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে উচ্চ শব্দে বাংলা-হিন্দি গান বাজতে শুরু করে। এই বিয়ের আয়োজন করা হয় গাজীপুরের টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের তৃতীয় তলায়।

হাসপাতালের কয়েকজন স্টাফ জানান, হাসপাতালের বাবুর্চি আলী আজগর হাসপাতালের ভেতরেই বসবাস করেন। এ জন্য তিনি অনুমতি নিয়ে হাসপাতালেই তার কন্যার বিয়ের অয়োজন করেন। হাসপাতালের নতুন ভবনের সামনে প্যান্ডেল সাজানো হয়। নিচতলায় শুক্রবার দিনব্যাপী বৌভাত অনুষ্ঠিত হয়। তৃতীয় তলায় ডেঙ্গু রোগীদের জন্য নির্দিষ্ট ওয়ার্ডের পাশের একটি কক্ষে আয়োজন করা হয় গায়ে হলুদের। সেখান বাংলা-হিন্দি গান বাজানো হয়েছে। গানের তালে তালে অতিথিরা সেখানে নাচেন।

স্থানীয় লোকজন ও রোগীদের স্বজনেরা জানান, সরকারি এ হাসপাতালে সবসময় শত শত রোগী চিকিৎসাধীন থাকেন। বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে হাসপাতালের ভেতর নানা ধরনের গান-বাজনা হয়েছে। এতে পাশের ওয়ার্ডের রোগীরা অতিষ্ট হয়ে ওঠেন।

হাসপাতালের পুরাতন ভবনের দ্বিতীয় তলায় রোগীদের বেড। আর নিচতলায় একটি কক্ষে মুরগী রাখা হয়েছে। একটি কক্ষে পেঁয়াজ, মরিচ ও মসলা বাটার কাজ হয়েছে।

সালমা আক্তার নামে এক রোগীর স্বজন সাংবাদিকদের বলেন, ‘শুক্রবার যা হয়েছে তা একটি কমিউনিটি সেন্টারের বৈশিষ্ট্য। হাসপাতালে ভেতরে গান বাজনাসহ বিয়ের আয়োজনের কারণে রোগীরা অসহনীয় দুর্ভোগে ছিলেন।’

কয়েকজন রোগী জানান, শুক্রবার হাসপাতালের ভেতর গান বাজনার শব্দে হাসপাতাল ছেড়ে চলে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। রোগী বলেই বাধ্য হয়ে থাকতে হয়েছেন তারা।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক কমর উদ্দিন বলেন, ‘বাবুর্চি আলী আজগর হাসপাতালের একজন স্টাফ। মানবিক কারণে তার মেয়ের বিয়ের আয়োজনের অনুমতি দেওয়া হয়।’ তবে রোগীদের সমস্যার বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি কোনও জবাব দিতে পারেননি।

টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন জানান, ‘হাসপাতালে বিয়ের অয়োজন হচ্ছে এমন খবরে বৃহস্পতিবার রাতে সব আয়োজন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পরে হাসপাতালে অনুষ্ঠান হয়েছে কি না তা জানি না।’

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/সেপ্টেম্বর ০৭,২০১৯)