Airtel & Robi User Only

প্রচ্ছদ » খেলা » বিস্তারিত

নাটকীয় ফাইনালে ৯ জনের বাংলাদেশকে হারাল ভারত

২০১৯ সেপ্টেম্বর ২৯ ১৭:৫২:০৩
নাটকীয় ফাইনালে ৯ জনের বাংলাদেশকে হারাল ভারত

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক: আশা জাগিয়েও ফাইনালে ‘ভারত জুজু’ কাটাতে পারলো না বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৮ দল। পুরো টুর্নামেন্ট অপরাজিত থেকে ফাইনালের নাটকীয় হারে এবারও রানার্স আপ বাংলাদেশ। ম্যাচের অন্তিম মুহুর্তে ডি-বক্সের সামান্য বাইরে থেকে ভারতের এক খেলোয়াড়ের নেওয়া শটে গোল হজম করে বসে লাল-সবুজ যুবারা। আর এতেই ৯ জনের বাংলাদেশকে ২-১ গোলে হারায় ১০ জনের ভারত।

নেপালের কাঠমুন্ডুতে এপিএফ স্টেডিয়ামে রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ সময় পৌনে তিনটায় সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল শুরু হয়। ৩ লাল কার্ডের উত্তেজনাকর ম্যাচে ২০১৭ সালের রানার্সআপকে হারায় ২০১৫ সালের রানার্স আপ ভারত। আর এর ফলে প্রথমবারের মতো সাফ অনুর্ধ্ব-১৮ শিরোপার জয় করলো ভারত।

ম্যাচ শুরুর দুই মিনিটের মাথায় পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। ভারতের বিক্রম প্রতাপ সিংয়ের গোলে ১-০ তে এগিয়ে যায় ২০১৫ সালের রানার্স-আপরা। এরপর ২৩ মিনিটে দুই দলই পরিণত হয় ১০ জনের দলে। ফাউল নিয়ে রেষারেষি হাতাহাতি পর্যায়ে পৌছালে ভারত ফরোয়ার্ড গুরকিরাত সিংকে লাল কার্ড দেখান রেফারি। আর মোহাম্মদ হৃদয় ২০ মিনিটে প্রথম হলুদ কার্ড দেখেছিলেন। ওই একই ঘটনায় দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন তিনি।

৩৮ তম মিনিটে বাংলাদেশ অধিনায়ক ইয়াসিন আরাফাত সমতাসূচক গোলটি করেন। কিন্তু উদযাপনের সময় জার্সি খুলে ফেলার চেষ্টা করায় তিনিও দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন। এর ফলে ৯ জনের দলে পরিণত হয় বাংলাদেশ। দলের অভিজ্ঞ অধিনায়ক ইয়াসিনের অনুপস্থিতে ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে গোল হজম করে লাল-সবুজের বাংলাদেশ।

দলের হয়ে বিজয়সূচক গোলটি করেন ভারতের বাহাদুর রানা। এই গোলে প্রথমবারের মতো শিরোপা স্পর্শ করলো ভারত। আর টানা দ্বিতীয়বার ফাইনালে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের।

এবারের গ্রুপ পর্বের লড়াই বাদ দিলে এর আগে বয়সভিত্তিক এই আসরে দু’বার মুখোমুখি হয়েছে দু’দল। ২০১৫ সালে বাংলাদেশকে টাইব্রেকারে হারিয়ে ফাইনালে ওঠেছিল ভারত। ২০১৭ সালে ভারতকে ৪-৩ ব্যবধানে সেমিতে হারায় বাংলাদেশ। সেবার রানার্সআপ হয়েই ঘরে ফিরে লাল-সবুজের যুবারা।

বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৮ দল

শুশান্ত কুমার রায়, সাদেকুজ্জামান ফাহিম, ইয়াসিন আরাফাত (অধিনায়ক), তানবির হোসেন, কাজী রাহাদ মিয়া, মারাজ হোসেন, আমির হাকিম, ফয়সাল আহমেদ ফাহিম, জামির উদ্দিন, মোহাম্মদ হৃদয়, ফাহিম মোর্শেদ।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/সেপ্টেম্বর ২৯,২০১৯)