Airtel & Robi User Only

প্রচ্ছদ » শেয়ারবাজার » বিস্তারিত

পতনের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না পূঁজিবাবার

২০২০ মার্চ ১৮ ১৫:০২:০৮
পতনের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না পূঁজিবাবার

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: পতন যেন রুটিনে পরিনত হয়েছে দেশের পূঁজিবাজারের। সরকারের পক্ষ থেকে একের পর এক আশ্বাস দেওয়া হলেও সেগুলো কোনো কাজে আসছে না।

সর্বশেষ আশার বাণী শোনা গিয়েছিল অর্থমন্ত্রীর কাছে থেকে। তিনি বলেছিলেন, আজ থেকে ব্যাংকের বিনিয়োগ শুরু হবে পূঁজিবাজারে। আর ব্যাংকের বিনিয়োগ শুরু হলে বাজার ঘুরে দাঁড়াবে।

কিন্তু না, আজও ব্যাপক পতন হয়েছে দেশের উভয় শেয়ারবাজারে।

সপ্তাহের চতুর্ধ দিন বুধবার প্রথম দুই ঘণ্টায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৮৯ পয়েন্ট বা প্রায় ২ দশমিক ৩৬ শতাংশ কমে ৩ হাজার ৬৮৩ পয়েন্টে অবস্থান করছিল।

আর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ২৬৬ দশমিক ৮১ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ৩ শতাংশ কমে অবস্থান করছিল ১১ হাজার ৩০৯ দশমিক ৬৯ পয়েন্টে।

এর আগে সোমবার বড় দরপতনে ডিএসই সূচক সাড়ে ছয় বছর আগের পর্যায়ে নেমে যায়। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ৪০৫৫ পয়েন্ট নিয়ে ডিএসইএক্স সূচক চালু হওয়ার পর ওই বছরেরই ২০ অক্টোবর সূচক নেমেছিল ছিল ৩ হাজার ৭৭১ দশমিক ৬৮ পয়েন্টে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার বাজারে লেনদেন বন্ধ ছিল। এরপর বুধবার বাজার খোলার পর মোটামুটি ধারাবাহিকভাবে সূচক কমতে থাকে।

বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ২৩৫ কোটি ৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩৫৬টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বাড়ে ৫০টির, কমে ২৬৪টির, ৩৮টি কোম্পানির শেয়ার দর অপরিবর্তিত ছিল।

চট্টগ্রামের বাজারে ওই সময় পর্যন্ত হাতবদল হয় ৭ কোটি ৮০ লাখ টাকার শেয়ার।

লেনদেন হওয়া ২২২টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বাড়ে ২৫টির, কমে ১৮০টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৭টির দর।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে পুঁজিবাজারে একটা আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। মানুষ মনে করছে অর্থনীতির খারাপ অবস্থা হতে পারে। তারা ভাবছে শেয়ারের দাম আরো কমে যাবে। ভয়ে শেয়ার বিক্রি করে টাকা তুলে নিচ্ছে।

এ অবস্থায় বাজার সামাল দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের তারল্য বাড়ানো উচিৎ বলে মত দেন তিনি। তিনি বলেন, সরকারি বন্ড কিনে নিয়ে অর্থনীতিতে টাকার যোগান বাড়াতে হবে। তারপর ব্যাংকগুলোকে বলতে হবে শেয়ার কিনতে।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/১৮মার্চ,২০২০)