Airtel & Robi User Only

প্রচ্ছদ » ধর্ম » বিস্তারিত

কোরআন ও হাদীসে জুম্মার যত ফজিলত

২০২০ এপ্রিল ২৪ ০৮:৪৭:০১
কোরআন ও হাদীসে জুম্মার যত ফজিলত

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক: মুমিন বান্দার শোকর গুজারের জন্য মহান রাব্বুল আলামীনের প্রতিটা দিনই সমান। কিন্তু তারপরও রয়েছে কিছু বিশেষ দিন। এমন দিনের বিষয়ে কোরআন ও হাদীসে বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে। আর তাই এই দিনগুলোর রয়েছে অনেক ফজিলত। এমনই একটি দিন হল পবিত্র জুম্মাবার বা শুক্রবার।

প্রথম হিজরি সনে নবী (সা.) মক্কা ছেড়ে মদিনা গেলেন। আমাদের প্রিয় নবী করীম (সা.) এর মদিনায় পৌঁছার দিনটি ছিল ইয়াওমুল আরুবা (শুক্রবার)।

আর সেদিন তিনি বনি সালেম গোত্রের উপত্যকায় গেলে ঠিক জোহর নামাজের সময় হয়। আর সেখানে তিনি জোহর নামাজের পরিবর্তে জুমার নামাজ আদায় করেন। এটাই ইতিহাসের প্রথম জুমার নামাজ। তবে আনুষ্ঠানিক সূচনা বা প্রচলন হয় আরো পরে।

শুক্রবার মুসলিম উম্মাহর সাপ্তাহিক উৎসবের দিন। এই দিনকে ‘ইয়াওমুল জুমা’ বলা হয়। মহান রাব্বুল আলামীন নভোমণ্ডল, ভূমণ্ডল ও গোটা জগৎকে ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন। আর এই ছয় দিনের শেষ দিন ছিল জুম্মার দিন।

এই জুম্মার দিনেই হজরত আদম (আ.) কে সৃষ্টি করা হয়। আর এ দিনেই তাকে জান্নাতে প্রবেশ করানো হয় এবং জান্নাত থেকে পৃথিবীতে নামানো হয়। মহাপ্রলয় বা কেয়ামতও এ দিনেই সংঘটিত হবে।

তাছাড়া, ইসলামের ইতিহাসে পবিত্র এই দিনটিতে ঘটেছে অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। পবিত্র আশুর, কারবালার প্রান্তে যুদ্ধ, হয়রত ঈশ (আ:) পৃথিবী থেকে তুলে নেওয়াসহ অগণিত ঘটনার উল্লেখ আছে জুম্মার দিনে।

আল্লাহ তায়ালা প্রতি সপ্তাহে মানবজাতির সমাবেশ ও ঈদের জন্য এ দিন নির্ধারণ করেছিলেন। এই দিনটির এতোই গুরুত্ব যে মহান রাব্বুল আলামীন পবিত্র কুরআনে জুম্মা নামে একটি স্বতন্ত্র সূরা নাজিল করেছেন।

জুমার নামাজ আদায়ের ব্যাপারে সুরা জুমআঃ ৯-১০ নং আয়াতে বলা হয়, হে মুমিনগণ! জুম্মার দিনে যখন নামাজের আযান দেয়া হয়, তোমরা আল্লাহর স্মরণে দ্রুত চলো এবং বেচাকেনা বন্ধ কর। এটা তোমাদের জন্যে উত্তম যদি তোমরা বুঝ। অতঃপর নামাজ শেষ হলে তোমরা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ খোঁজ কর ও আল্লাহকে অধিক স্মরণ কর, যাতে তোমরা সফলকাম হও।
সহিহ মুসলিমঃ ১৪১০ নং হাদীসে আবূ হুরাইরা (রা:) বর্ণণা করেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, সকল দিনের মধ্যো সর্বোত্তম দিন হলো জুম্মার দিন। এই দিনে আমাদের আদি পিতা আদম (আঃ) কে সৃষ্টি করা হয়েছে, তাকে বেহেস্ত দান করা হয়েছে এবং এই দিনেই তাঁকে সেখান থেকে বের করা হয়েছে।

তাছাড়া, জুম্মার গুরুত্ব বিষয়ে তাফসিরে মাজহারি, খ: ৯, ২৮৩ পৃষ্ঠায় হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে বলা হয়েছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো শরিয়ত সম্মত কারণ ছাড়া জুম্মার নামাজ বর্জন করবে, তার নাম মুনাফিক হিসেবে এমন দফতরে লিপিবদ্ধ হবে, যা মুছে ফেলা হবে না এবং পরিবর্তনও করা যাবে না।

জুম্মার এমন গুরুত্বের কারণে হাদীসের ভিত্তিতে ফেকাহবিদরা কিছু বিশেষ আমল ঠিক করে দিয়েছেন। যেমন-

১) জুম্মার দিন গোসল করা, যাদের ওপর জুম্মা ফরজ তাদের জন্য এ দিনে গোসল করাকে রাসুল (সা) ওয়াজিব করেছেন। তবে আহনাফদের মাযহাব অনুযায়ী সুন্নত।

২) পরিচ্ছন্নতার অংশ হিসেবে নখ ও চুলকাটা।

৩) জুম্মার সালাতের জন্য সুগন্ধি ব্যবহার করা। (বুখারি)

৪) মিস্ওয়াক করা। (ইবনে মাজাহ)

৫) গায়ে তেল ব্যবহার করা। (বুখারি)

৬) উত্তম পোশাক পরিধান করে জুম্মা আদায় করা। (ইবনে মাজাহ)

৭) মুসল্লিদের ইমামের দিকে মুখ করে বসা। (তিরমিযি)

৮) পায়ে হেঁটে মসজিদে যাওয়া। (আবু দাউদ)

৯) জুম্মার দিনও জুম্মার রাতে বেশি বেশি দুরুদ পাঠ। (আবু দাউদ: ১০৪৭)

১০) এ দিন বেশি বেশি দোয়া করা। (বুখারি)

১১) মুসুল্লীদের ফাঁক করে মসজিদে সামনের দিকে এগিয়ে না যাওয়া। (বুখারি)

১২) জুম্মার দিন সূরা কাহাফ পড়া। পাঠকারীর জন্য আল্লাহ তায়ালা দুই জুম্মার মধ্যবর্তী সময়কে আলোকিত করে দেন।


জুম্মাবারের ফজিলতের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিকটি হলো, এই দিনে এমন একটা সময় আছে, যখন মুমিন বান্দা কোনো দোয়া করলে মহান আল্লাহ পাক তার দোয়া কবুল করেন।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/২৪এপ্রিল,২০২০)