প্রচ্ছদ » আলোচনা পর্যালোচনা » বিস্তারিত

নোবেল জয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসার লড়াকু জীবন

২০২১ অক্টোবর ০৯ ০০:৫০:০৬
নোবেল জয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসার লড়াকু জীবন

মহিউদ্দীন মোহাম্মদ: মারিয়া রেসা এমন একটি দেশে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার লড়াইয়ের প্রতীক হয়ে উঠেছেন যেখানে সাংবাদিকরা হুমকির মুখে।

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে ও তার সমর্থকদের অভিযোগ, ওয়েবসাইট র‌্যাপলার-এর মাধ্যমে তিনি ভুয়া খবর ছড়ান।এ রকম একজন ব্যক্তি সম্পর্কে জানা তাই জরুরী।

বাড়ি ছেড়ে প্রবাসে

মিসেস রেসার জন্ম ফিলিপাইনেই। তবে ১৯৭০ এর দশকের প্রথম দিকে ফার্দিনান্দ মার্কোস সামরিক আইন ঘোষণা করলে, সেই ছোট বেলায় যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান।

তিনি বিবিসির লাইস ডাউসেটকে বলেন, আমি নিউ জার্সিতে যখন গেছি তখন সবেমাত্র ইংরেজি বলতে পারতাম, আর আমাকে এই ছোট সাদা বাদামী পৃথিবীতে একটি ছোট বাদামী শিশু কী করতে যাচ্ছে তা বের করতে হয়েছিল।

তিনি সেখানে শিক্ষায় মনযোগ দেন। মর্যাদাপূর্ণ প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার পর মিসেস রেসা শেকড়ের টানে ফিলিপাইনে ফিরে আসেন।

আমি সবসময় অনুভব করতাম যে আমি আমেরিকানদের মতো আমেরিকান নই। আর আমি ফিলিপাইনে ফিরে এসে বুঝতে পারলাম যে আমি ফিলিপিনো নই।বলেন রেসা।

সাংবাদিক হয়ে ওঠা

১৯৮৬ সালে যখন ফিলিপিনোরা মার্কোসকে উৎখাত করতে রাস্তায় নেমেছিল, মিসেস রেসা ফিরে আসেন সেসময়।

সাংবাদিকতায় তার অগ্রগতি প্রাথমিকভাবে তিনি যে দেশে বড় হয়ে উঠেছিলেন । তবে এটি শিগগিরই আরো কিছু হয়ে ওঠে।

হে ঈশ্বর আমি বুঝতে পেরেছিলাম, কেউ আমাকে প্রতিবেদন লেখার জন্য অর্থ প্রদান করবে। রেসার উক্তি।

মিস্টার দুতার্তে সেই আশির দশকে যখন দাভাও শহরের মেয়র, তার সাথে সাক্ষাতের মধ্যদিয়ে নতুন জীবনের শুরু।

মিসেস মারিয়া রেসা ফিলিপাইন ও ইন্দোনেশিয়ায় মার্কিন নেটওয়ার্ক সিএনএন-এর ব্যুরো প্রধান এবং ফিলিপাইন টিভি চ্যানেল এবিএস-সিবিএন-এর বার্তা বিভাগের প্রধানসহ বেশ কয়েকটি মিডিয়ায় জ্যেষ্ঠ পদে কাজ করেছেন।

র‌্যাপলার প্রতিষ্ঠা

মিসেস রেসা অনলাইন নিউজ সাইট র‌্যাপলারের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। "র‌্যাপ" অর্থ কথা বলা আর “লার” অর্থ ঢেউ। এ দুটি একত্রিত হয়ে তৈরি হয় তরঙ্গ।

তার উচ্চাশা ছিল র‌্যাপলারকে ফিলিপাইনের সবচেয়ে বড় নিউজ সাইট বানানোর। এজন্য তিনি কুড়িবয়সী তরুণদের জড়ো করে ও সোস্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে।

র‍্যাপলারের এখন ফেসবুকে ৪৫ লাখের বেশি অনুসারী রয়েছে। এটি তার বুদ্ধিমত্তা বিশ্লেষণ ও কঠোর অনুসন্ধানের জন্য পরিচিত হয়ে উঠেছে।

২০১৫ সালে সাইটটি অনেক মনোযোগ আকর্ষণ করে। মিস্টার দুদার্তে- যখন দাভাওয়ের মেয়র তখন তিনি মিসেস রেসাকে বলেছিলেন তিনজনকে খুন করেছেন।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, মিসেস রেসা র‌্যাপলারের সাফল্যের কেন্দ্রে ছিলেন।

প্রথমত, তিনি পিছু হটেননি; তিনি যা বিশ্বাস করেন তার জন্য লড়াই চালিয়ে গেছেন। তার বিশ্বাসযোগ্যতাও রয়েছে। তিনি কয়েক দশক ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে আছেন ... এবং তার কাজটি ভালভাবে করেছেন।

বার্কলে'র সাউথইস্ট এশিয়ান স্টাডিজ ডিপার্টমেন্টের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক জোই ব্যারিওস-লেব্ল্যাঙ্ক বলেন, তাছাড়া আন্তর্জাতিক মিডিয়া ও বহির্বিশ্বে তার যোগাযোগ রয়েছে।

ম্যানিলায় বিবিসির হাওয়ার্ড জনসন তীক্ষ্ণ বিশ্লেষণাত্মক মন নিয়ে তাকে আকর্ষণীয় বক্তা হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

তিনি তার শ্রোতাদের, বিশেষ করে সামাজিক মিডিয়া ও তার প্রভাবের বিষয়ে জটিল সামাজিক উন্নয়ন ব্যাখ্যা করতে দক্ষ। জনসনের মন্তব্য।

সরকারের সমালোচনা

র‌্যাপলার ফিলিপাইনের কয়েকটি গণমাধ্যম সংস্থার মধ্যে একটি যা রাষ্ট্রপতি দুতার্তে ও তার নীতির প্রকাশ্যে সমালোচনা করে আসছে।

জনপ্রিয় গণমাধ্যমটি রাষ্ট্রপতির মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার ব্যাপারটি তুলে ধরে। এতে হাজার হাজার নিরীহব্যক্তির প্রাণ কেড়ে নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়।

মিসেস রেসা ব্যক্তিগতভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরকারি প্রচারের বিষয়ে রিপোর্ট করেন। র‌্যাপলারে কুসংস্কার, মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং দুর্নীতির বিষয়ে সমালোচনা করা প্রতিবেদন অনেকের নজর কাড়ে।

নজর পড়েনি শুধু দুদার্তের। ২০১৮ সালে একজন র‍্যাপলারের প্রতিবেদক রাষ্ট্রপতির সাথে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, তুমি যদি আমাদের উপর আবর্জনা ছুঁড়ে মারার চেষ্টা কর, তাহলে আমরা যেটা করতে পারি তার তা কি বোঝ? তুমি কি পরিষ্কার?"

ওই একই বছর রাষ্ট্রপতি র‌্যাপলারের রিপোর্টারদের তার অফিসিয়াল কার্যক্রম কাভার করতে নিষেধ করেন। এমনকি সরকার সাইটটির অপারেটিং লাইসেন্স বাতিল করে।

মিসেস রেসা অসংখ্য মামলার মুখোমুখি হয়েছেন।

২০২০ সালে, দেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতার পরীক্ষা হিসেবে দেখা একটি মামলায় "সাইবার-মানহানির" জন্য তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। কর ফাঁকি থেকে শুরু করে বিদেশি মালিকানা লঙ্ঘন পর্যন্ত আদালতের অন্যান্য ক্ষেত্রেও র‍্যাপলার এবং মিসেস রেসাকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়।

মিসেস রেসা তার বিরুদ্ধে সমস্ত মামলাকে "রাজনৈতিক হাতিয়ার" হিসাবে বর্ণনা করেছেন। একই দাবি বিশ্বব্যাপী মানবাধিকারকর্মী ও সংবাদকর্মীদের।

খ্যাতির চূড়ায়

মিসেস ব্যারিওস-লেব্ল্যাঙ্ক বলেন, মিসেস রেসা ফিলিপাইনে সাংবাদিকদের দুর্দশার প্রতিনিধিত্ব করতে এসেছিলেন। কারণ তিনি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন যা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।

তথ্য মহাবিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দুটি মাধ্যমে র‌্যাপলারকে পরিচালনার জন্য ২০১৮ সালে মিসেস রেসাকে টাইম ম্যাগাজিন পার্সন অফ দ্য ইয়ার হিসেবে মনোনীত করে।

২০২১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পাওয়ার মধ্যদিয়ে "ক্ষমতার অপব্যবহার, সহিংসতার ব্যবহার ও তার নিজ দেশে ক্রমবর্ধমান কর্তৃত্ববাদ" এর প্রতিবাদকারী হিসেবে প্রশংসিত হলেন।

সেন্সরশিপ ম্যাগাজিনের ইনডেক্সের সম্পাদক র‌্যাচেল জোলি তার নাম ব্যাপকভাবে জানার আগে একটি সাংবাদিক উৎসবে মিসেস রেসার সাথে সাক্ষাতের কথা স্মরণ করেন। তিনি বলেন তাকে অসাধারণ শক্তিশালী ব্যক্তি হিসাবে দেখতে এসেছিলেন যাতে তিনি সরকারি চাপের কাছে নতি স্বীকার না করেন।

স্থানীয় সাংবাদিক এলেন টর্ডেসিলাস বলেন, যারা দুতার্তের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন তাদের একজন হিসেবে মিসেস রেসা প্রশংসিত।

সূত্র: বিবিসি ইংলিশ

(দ্য রিপোর্ট/একেএমএম/অক্টোবর ০৯, ২০২১)